NID Print Mistake Correction Form 1 pdf । জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ২০২২



আবেদন পত্রের সাথে যেসব দলিলাদি (এক বা একাধিক) দাখিল করতে হবে – Download NID Necessary Forms– জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ২০২২

হারানো পরিচয়পত্রের ডুপ্লিকেট ইস্যু– পরিচয়পত্র হারানোর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট থানায় ভোটার নম্বর/আইডি নম্বর উল্লেখ করে জিডি করে তার মূল কপিসহ সাদা কাগজ/সরবরাহকৃত ছকে আবেদনপত্র নির্দিষ্ট কাউন্টারে জমা দিয়ে প্রাপ্তি স্বীকার পত্র গ্রহণ করতে হবে। প্রাপ্তি স্বীকারপত্রে উল্লিখিত ডুপ্লিকেট পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়। নম্বর ভুল হলে ডুপ্লিকেট পরিচয়পত্র ইস্যুকরণ সময় সাপেক্ষ। বিতরণের জন্য নির্ধারিত তারিখের ৭(সাত) দিনের মধ্যে কাউন্টার হতে ডুপ্লিকেট পরিচয়পত্র গ্রহণ করা না হলে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে।

হালনাগাদ কর্মসূচীর সংশোধন/পুনঃ ইস্যু- ২০০৯ সালে হালনাগাদ কর্মসূচীতে যাদের নাম ভোটার তালিকায় অন্তৰ্ভূক্ত করা হয়েছে তাঁদের জাতীয় পরিচয়পত্র কোন ভুল থাকলে বা হারিয়ে গেলে ডিসেম্বর, ২০১০ মাসের পর যোগাযোগ করার জন্য বলা হয়েছিল। ২০২২ সালেই বর্তমানে ভোটার তালিকা হালনাগানকরণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। সম্প্রতি জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ শেষ হয়েছে।


জাতীয় পরিচয়পত্রে ঠিকানা সংশোধন- ঠিকানা পরিবর্তনের বিষয়ে ফরম-১৩/ফরম-১৪ এ সংশ্লিষ্ট উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিসে আবেদন করতে হবে। প্রকল্প অফিসে ভোটার এলাকা পরবর্তন ছাড়া শুধু ঠিকানায় নম্বর বা বানান ভুল থাকলে তা সংশোধন করা হয়।এজন্য পরিবারের কোন সদস্যের পরিচয়পত্রের কপি। গ্যাস/বিদ্যুৎ/টলিফোন বিলেরকপি,কর আদায়ের কপি। চেয়ারম্যান/ওয়ার্ড কমিশনারের প্রত্যয়নপত্র ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।


এনআইডি কার্ডে রক্তের গ্রুপ সংশোধন ২০২২ / রক্তের গ্রুপ অন্তর্ভুক্ত বা সংশোধন করতে হলে মেডিকেল প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

বিবিধ সংশোধন- জাতীয় পরিচয়পত্রে কোন নামের পূর্বে পদবী, উপাধি, খেতাব ইত্যাদি সংযুক্ত করা যাবে না। পিতা/স্বামী/মাতাকে “মৃত” উল্লেখ করতে চাইলে মৃত্যু সনদ দাখিল করতে হবে। জীবিত পিতা/স্বামী/মাতাকে ভুলক্রমে “মৃত” হিসেবে উল্লেখ করার কারণে পরিচয়পত্র সংশোধন করতে হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির পরিচয়পত্রের কপি দাখিল করতে হবে।



Caption: Print Mistake Correction Form1.pdf / মুদ্রণজণিত ভুল সংশোধনের আবেদনপত্র সংগ্রহ করুন এখান থেকেই। Download

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনে আবেদনকারীর জন্য নির্দেশাবলী ২০২২

  • আবেদনপত্রে প্রদত্ত আবেদনকারীর স্বাক্ষর কমিশনে সংরক্ষিত তথ্য-উপাত্তে রক্ষিত আবেদনকারীর স্বাক্ষরের অনুরূপ হইতে হইবে।
  • আঠারাে বৎসরের কম বয়স্ক বা আদালত কর্তৃক অপ্রকৃতিস্থ ঘােষিত জাতীয় পরিচয়পত্রধারীর ক্ষেত্রে, আইনানুগ অভিভাবক অত্র আবেদনপত্রে স্বাক্ষর করিবেন এবং আবেদনপত্রের সহিত উক্ত অভিভাবকের জাতীয় পরিচয়পত্রের অনুলিপি অবশ্যই জমা দিতে হইবে।
  • আবেদনপত্রের সহিত জাতীয় পরিচয়পত্রধারীর জাতীয় পরিচয়পত্রের অনুলিপি জমা দিতে হইবে।
  • জরুরি আবেদনের ক্ষেত্রে, আবেদনকারী ৭ (সাত) ও সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে, আবেদনকারী ৩০ (ত্রিশ) কার্যদিবসের মধ্যে সংশােধিত জাতীয় পরিচয়পত্র লাভ করিবেন এবং প্রয়ােজনে, কমিশনে সংরক্ষিত তথ্য-উপাত্ত সংশােধনক্রমে উহা আবেদনকারী বা, ক্ষেত্রমত, তাহার আইনানুগ অভিভাবককে অবহিত করিবে।
  • অত্র আবেদনের জন্য আবেদনকারীকে কোনাে ফি/চার্জ প্রদান করিতে হইবে না।
  • অসম্পূর্ণ বা ত্রুটিপূর্ণ আবেদন বাতিল বলিয়া গণ্য হইবে।

নিজের ও পিতা-মাতার নাম সংশোধনের ডকুমেন্ট কি কি লাগে?

নিজ পিতা/স্বামী/মাতার নাম সংশোধন- আবেদন পত্রের সাথে যেসব দলিলাদি (এক বা একাধিক) দাখিল করতে হবে-

  • এস.এসসি/সমমান সনদ
  • নাগরিকত্ব সনদ
  • জন্ম সনদ
  • চাকুরীর প্রমাণপত্র
  • পাসপোর্ট
  • নিকাহনামা
  • পিতা/স্বামী/মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি
আবেদনপত্রের সাথে সংযুক্ত দলিলাদি অবশ্যই সত্যায়িত হতে হবে সাধারণতঃ প্রাপ্তিস্বীকারপত্রে উল্লিখিত তারিখে সংশোধিত পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়।  নিজের নাম পরিবর্তন ডাক নাম বা অন্য নামে নিবন্ধিত হলে সংশোধনের জন্য আবেদনের সাথে জমা দিতে হবে?

  • এস.এস.সি/সমমান সনদের সত্যায়িত ফটোকপি
  • বিবাহিতদের ক্ষেত্রে স্ত্রী/স্বামীর জাতীয় পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি
  • ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে সম্পাদিত এফিডেভিট
  • জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞাপনের কপি।

পরবর্তীতে কাগজপত্রের মূলকপি সহ ব্যক্তিগত শুনানীর জন্য উপস্থিত হতে হবে। বিবাহ/বিবাহবিচ্ছেদের কারণে সংশোধণ- বিবাহের কারণে স্বামীর নাম অন্তর্ভুক্ত করতে চাইলে- কাবিননামা ও স্বামীর জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি দাখিল করতে হবে। বিবাহ-বিচ্ছেদের কারণে স্বামীর নাম বাদ দিতে চাইলে- তালাকনামার সত্যায়িত কপি দাখিল করতে হবে।সাধারণতঃ প্রাপ্তি স্বীকারপত্রে উল্লিখিত তারিখে সংশোধিত পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়।

পিতা/মাতার নাম পরিবর্তন- পিতা/মাতার নাম আমূল পরিবর্তনের ক্ষেত্রে আবেদনের সাথে জমাদিতে হবে।


  • এসএসসি/এইচএসসি/সমমান পরীক্ষার সনদপত্র/রেজিস্ট্রেশন কার্ড
  • পিতা/মাতার পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি
  • পিতামাতামৃত হলে অন্যান্য ভাইবোনের পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি
  • অন্য কোন গ্রহণযোগ্য কাগজের সত্যায়িত কপি
  • প্রকল্প কার্যলয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকর্তৃক সাক্ষাতকার গ্রহণ করা প্রয়োজন হতে পারে।


জন্মতারিখ সংশোধন- 


যাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যূনতম এসএসসি/সমমান, তাদের জন্মতারিখ সংশোধনের ক্ষেত্রে আবশ্যিকভাবে এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি জমা দিতে হবে। বয়সের পার্থক্য অস্বাভাবিক না হলে প্রাপ্তি স্বীকারপত্রে উল্লেখিত তারিখে সংশোধিত পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়। অস্বাভাবিক পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সনদের মূল কপি প্রদর্শনকিংবা ব্যক্তিগত শুনানীতে অংশ নেয়া প্রয়োজন হতে পারে। যাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা অনূর্ধ এসএসসি/সমমান তাদের জন্মতারিখ সংশোধনের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র ইস্যু তারিখের আগের তারিখের-

  • সার্ভিস বুক/এমপিও’র কপি
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • জন্ম সনদ
  • নিকাহনামা
  • পাসপোর্টর কপি প্রভৃতি দাখিল করতে হবে

প্রকল্পকালিয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা/প্রকল্প পরিচালক কর্তৃক সাক্ষাতকার গ্রহণ করা হয়, প্রয়োজনবোধে সংশ্লিষ্ট নির্বাচন কর্মকর্তার মাধ্যমে সরেজমিনে তদন্ত করা হয়। ভোটার তথ্য সংশোধনের ক্ষেত্রে অবশ্যই সঠিক তথ্য সরবরাহ করুন। ভুল ও ভূয়া তথ্য প্রদান শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

তথ্য সূত্র: Laws and Rules for NID Correction

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ২০২২,
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি জমা দেওয়ার নিয়ম,
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ১,
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ২০২১,
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে কতদিন সময় লাগে,
অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার নিয়ম,
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের বিশেষ সুযোগ,
ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ফরম ১৩,

0 comments:

Post a Comment